চন্দনাইশে অলির ভাইয়ের নাম কালিতে মুছল ছাত্রলীগ

0
সিটি নিউজ ডেস্ক :   এলডিপি চেয়ারপার্সন কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রমের মাতা-পিতার নামে প্রতিষ্ঠিত চন্দনাইশ উপজেলা কলেজের একটি ভবন থেকে অলির বড় ভাইয়ের নাম কালি দিয়ে মুছে দিয়েছে ছাত্রলীগ। গত বৃহস্পতিবার ৭ মার্চ বিকালে চন্দনাইশ উপজেলা, পৌরসভা ও গাছবাড়িয়া সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের একটি দল কালো কালিতে মুছে দেয় নামটি।

জানা যায়, গত বছরের প্রথম দিকে কর্নেল অলি আহমদ তার পিতা ও মাতার নামে প্রতিষ্ঠিত আমানত ছফা বদরুন্নেছা মহিলা কলেজে চারতলা একটি ভবনের বরাদ্দ দেন স্থানীয় সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম চৌধুরী। প্রায় চার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ভবনটির নির্মাণ কাজ যথাসময়ে শেষ হওয়ার পর আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনের পর ভবনটির নাম রাখা হয় অলির বড় ভাই মরহুম আলী আহমদের নামানুসারে আলহাজ্ব আলী আহমদ একাডেমিক ভবন। এ নামটি ভবনের দ্বিতীয় তলায় লিখে দেওয়া হয়। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে এবং এ সরকারের আর্থিক অনুদানে নির্মিত ভবনটির নাম অলির বড় ভাইয়ের নামে করায় ক্ষুব্ধ হন স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ।গত শক্রবার বিকালে ২০-২৫ জনের ছাত্রলীগ নেতাকর্মীর একটি দল কলেজ ক্যাম্পাসে পৌঁছে ভবনের তৃতীয় তলায় নামটি কালো কালি দিয়ে মুছে দেন।

নাম মুছে দেওয়া দলে নেতৃত্ব দেওয়া উপজেলা ছাত্রলীগের আবদুর নুর তুষার চৌধুরী বলেন, স্থানীয় সাংসদ নজরুল ইসলাম চৌধুরীর বরাদ্দে আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে নির্মিত ভবনের নাম স্বাধীনতার পক্ষের কোনো বিশিষ্ট ব্যক্তি বা মুক্তিযোদ্ধার নামে না রেখে অলির বড় ভাইয়ের নামে রাখার প্রতিবাদে আমরা নামটি মুছে দিয়েছি। কলেজ কর্তৃপক্ষ আবার এ নামটি রাখার চেষ্টা করলে চন্দনাইশের ছাত্রলীগ সবাইকে সাথে নিয়ে কঠোর আন্দোলন গড়ে তুলবে।

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শিপ্রা সিকদার সাংবাদিকদের জানান, কলেজের গভর্নিং বডির সিদ্ধান্তেই এ নামটি রাখা হয়েছিল।

চন্দনাইশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ ন ম বদরুদ্দোজা বলেন, নাম রাখা এবং মুছে দেয়ার ব্যাপারে তিনি কিছুই জানেন না। তাকে কেউ কিছু জানায়নি।

এ বিভাগের আরও খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.