ধর্ষণের হুমকিদাতা আটকের পর ছাড়া পেলেন যেভাবে

0

সিটি নিউজ ডেস্ক : সিলেটে ইন্টার্ন চিকিৎসককে ধর্ষণ ও হত্যার হুমকিদাতা সেই ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আজ মঙ্গলবার ১৪ মে দুপুর ২টার দিকে তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানান, সিলেট কোতোয়ালি থানার ওসি মোহাম্মদ সেলিম মিঞা।

এর আগে সোমবার রাতে ওই ছাত্রলীগ নেতার নাম উল্লেখ করে থানায় মামলা করা হয়।

ওসি জানান, মামলা রেকর্ড হওয়ার পর পুলিশের একাধিক টিম সারোয়ারকে গ্রেফতারে মাঠে নামে। আজ দুপুরে তাকে নয়াসড়ক এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়।

তিনি জানান, সারোয়ারকে থানায় নেওয়ার পর তিনি সিলেটের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে জামিন নেওয়ার কাগজপত্র দেখালে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সারোয়ার হোসেন দাবি করেন, মামলায় ঘটনা যেভাবে বর্ণনা করা হয়েছে, তা সঠিক নয়। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে চিকিৎসকরা কটূক্তি করায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়েছিলেন। ধর্ষণ কিংবা হত্যার কোনো হুমকি দেননি।

গত ৯ মে বিকেলে অ্যাপেন্ডিসাইটিস ব্যথায় ভোগা একজনকে নিয়ে ১০-১৫ জন ছাত্রলীগকর্মী নগরীর মিরবক্সটুলা সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যান। এ সময় রোগীর সাথে লোকজন থাকা নিয়ে চিকিৎসকদের কথা-কাটাকাটি হয়।

ডা. নাসিফা আনজুম নিশাত তার ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে দাবি করেন, ছুরি দেখিয়ে তাকে হত্যার হুমকি ও বাইরে বের হলে ধর্ষণ করার হুমকি দেন ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেন।

এ ঘটনার পরদিন থেকে ইন্টার্ন চিকিৎসক কর্মবিরতি পালন করে আসছিলেন।

গত ১১ মে এ ঘটনায় হাসপাতালের পরিচালক ফেরদৌস হাসান কোতোয়ালি থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন।

ঘটনার চারদিন পর গত সোমবার রাতে সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ফেরদৌস হাসান বাদী হয়ে সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানায় ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরো ৮/১০ জনকে আসামি করে মামলা করেন।

এ বিভাগের আরও খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.