বোয়ালখালীতে ফার্মেসীতে অপারেশনঃ অত:পর রোগীর মৃত্যু

0

বোয়ালখালী প্রতিনিধিঃ চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে সমীর দাশ(৩৬) নামের পত্রিকা হকারের অকাল মৃত্যুহয়েছে । এর জন্য ভুল চিকিৎসাকে দায়ী করছে সমীরের পরিবার।

পরিবারের অভিযোগ, উপজেলার কানুনগোপাড়ার শিমুল মেডিকো নামের একটি ঔষধের দোকানে গত ৩ এপ্রিল বিকেলে সমীরের কোমড়ে অপারেশন করেন এম কে ধর নামের এক চিকিৎসক। এরপর সমীরের শারীরিক অবস্থা অবনতি ঘটে। সর্বশেষ গত ৭ এপ্রিল দিবাগত রাত পৌণে ১টার সময় নগরীর একটি বেসরকারী হাসপাতালে মারা যায় সমীর।

উপজেলার সারোয়াতলী খিতাপচর গ্রামের খগেন্দ্র লাল দাশের ছেলে সমীর দাশ পেশায় পত্রিকার হকার। তাঁর ৪ বছরের একটি ছেলে রয়েছে।

সমীর দাশের বড় ভাই হারাধন দাশ জানান, গত ২৫ মার্চ কোমরের ব্যাথা নিয়ে কানুনগোপাড়া শিমূল মেডিকোতে ডা. এম. কে ধরের কাছে যান। এম কে ধর কোমড়ে ইঞ্জেকশনসহ ঔষধ দেন এবং এক্সরে করার পরামর্শ দেন। পরামর্শ অনুযায়ী কোমড়ে ব্যবহৃত ইনজেকশনের জায়গায় ফুলে যায়। এরপর ২৭ মার্চ এক্স রে রির্পোট নিয়ে গেলে ডাক্তার আবারো নতুন করে চিকিৎসাপত্র দেন।

এতে অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় গত ৩ এপ্রিল তিনি গেলে চিকিৎসক কোমড়ে ফুলে যাওয়া জায়গায় অপারেশন করে সেলাই করে দেন। এরপর দিন ৪এপ্রিল তিনি পুনরায় ওই স্থানে ডেসিং করে নতুন করে আরো একটি ব্যবস্থা পত্র লিখে দেন।

এর মধ্যে সমীর দাশের জীবন সংকটাপন্ন হয়ে পড়লে ৬ এপিল নগরীতে মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. হিরনম্ময় দত্তের স্মরনাপন্ন হলে তিনি রোগীর অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরার্মশ দেন।

এ অবস্থায় নগরীর একটি বেসরকারী হাসপাতালে ভর্তি করানো হলে সমীর দাশকে ৭ এপ্রিল বিকেল ৩টার দিকে লাইফ সার্পোটে নিতে হয় এবং রাত পৌনে ১টার সময় সমীরকে মৃত ঘোষণা করে চিকিৎসক।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, কানুনগোপাড়া শিমুল মেডিকো ফার্মেসীতে ডা.এম.কে ধর চিকিৎসা প্রদান করেন। তার প্রদত্ত চিকিৎসা পত্রে উল্লেখ রয়েছে এমবিবিএস, এমপিএইচ, সি-আলট্রা ডিগ্রি রয়েছে।

নবজাতক, মা-শিশু, বাত, ব্যাথা ও মেডিসিন রোগে অভিজ্ঞ। এছাড়া জলাতঙ্ক, হেপাটাইটিস, মেনিনজাইটিসসহ বিভিন্ন টিকা দেয়া ও নাক, কান ব্যাথামুক্ত ফোঁড়ানো হয়। কমিউনিটি মেডিসিন এ স্নাতকোত্তর প্রশিক্ষণ প্রাপ্ত, তিনি চট্টগ্রাম সাতকানিয়া মা-শিশু জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। তবে সাতকানিয়া মা-শিশু জেনারেল হাসপাতালে সাথে যোগাযোগ করে জানা গেছে, ডা. এম কে ধর নামের কোনো চিকিৎসক তাদের হাসপাতালে কর্মরত নেই।

এ বিষয়ে একাধিক চিকিৎসকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, রোগ নিরুপণ ছাড়াই ফার্মেসীতে রোগীর অপারেশন একজন চিকিৎসক করতে পারেন না। মূলত সমীর দাশ অপ-চিকিৎসার শিকার হয়েছে।

এ ব্যাপারে এম কে ধরের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সমীর রিকশা থেকে পড়ে কোমড়ে আহত হওয়ার কারণে ইনফেশন হয়েছিলো। চিকিৎসার ফলে তা প্রায় সেরে গিয়েছিলো।

সর্বশেষ সোমবার আসার কথা থাকলেও সমীর আর আসেনি জানিয়ে তিনি বলেন, সমীরের চিকিৎসায় কোনো ত্রুটি ছিলো না। সমীরে পরিবারের প্রায় জনের চিকিৎসা তিনি করতেন। সমীর খুবই দুঃস্থ পরিবারের সন্তান।

ডা. এম.কে ধরের পূর্ণ নাম মিঠু কুমার ধর জানিয়ে তিনি বলেন, বর্তমানে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ মা-শিশু জেনারেল হাসপাতালের ডায়ারিয়া ওয়ার্ডে কর্মরত রয়েছেন । তবে হাসপাতালের সাথে যোগাযোগ করলে এ নামের কেউ হাসপাতালের কর্মরত নেই বলে জানানো হয়।

এ বিভাগের আরও খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.