রাউজানে শিক্ষার্থীর মৃত্যু-সাংসদপুত্রের হস্তক্ষেপে মামলা

0

নেজাম উদ্দিন রানাঃ সাংসদপুত্র হিসেবে দাম্ভিকতার লেশমাত্রও কিছু নেই তার কাছে। চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলাকে একটি মডেল এবং পরিচ্ছন্ন উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলতে বাবার পাশে থেকে কাজ করে যাচ্ছেন রাউজানের তরুণ প্রজন্মের কাছে খুবই জনপ্রিয় রাউজানের সাংসদ এ বি এম ফজলে করিম চৌধুরীর পুত্র ফারাজ করিম চৌধুরী। ন্যায়, সত্য ও সুন্দরের পক্ষে তিনি সরব থাকেন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

সূত্র মতে, গত ২১ জানুয়ারী সোমবার সকাল সাড়ে দশটার দিকে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের অধীনে বিউটিফিকেশন কোর্সের ক্লাসে অংশ নিতে যাওয়ার সময় উপজেলা পরিষদ সন্মুখস্থ স্থানে উপজেলার ইয়াছিননগর আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় হতে রাঙ্গামাটি শিক্ষা সফরে যাওয়া একটি বাস (চট্টমেট্রো-ব-০২-০১৩১) রেশমাকে ধাক্কা দিলে মারাত্মক আহতাবস্থায় স্থানীয় লোকজন রেশমাকে উদ্ধার করে উপজেলার গহিরাস্থ জে.কে মেমোরিয়াল হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তিন ভাই আর দুই বোনের মধ্যে রেশমা ছিল পরিবারের সবার বড়। সে হাটহাজারী সরকারি কলেজ থেকে এইচএসসি পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল।

বাসের ধাক্কায় কলেজ ছাত্রী রেশমার মৃত্যুর পর ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে তৎপর হয়ে উঠে একটি কুচত্রী মহল। তারা রেমশার বাবা মনির হোসেনকে ৩০ হাজার টাকার বিনিময়ে ঘটনার সূরাহা করতে উঠেপড়ে লাগেন। সংবাদটি শুণে মুহুর্তেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে একটি স্ট্যাটাস দেন সাংসদপুত্র ফারাজ করিম চৌধুরী। ২১ জানুয়ারী বিকেল ৫টা ৫ মিনিটে দেওয়া স্ট্যাটাসে তিনি লেখেন, আমি স্তব্ধ, আমি নির্বাক!

বাসের ধাক্কায় নিহত রেশমা
বাসের ধাক্কায় নিহত রেশমা

মাত্র ৩০ হাজার টাকা দিয়ে কি একটি প্রাণ ফিরে আসবে ? শুনলাম মেয়ের বাবা-মা নাকি ভয়ে মামলা করছে না। ভাবতে অবাক লাগে, আমাদের মধ্যে থাকা সিনিয়র নেতারা বাবাকে ফোন করে এই মামলা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। নোংরামি কোন পর্যায়ে গিয়ে পৌছেছে দেখুন। ’ সাংসদপুত্র ফারাজ করিম পরবর্তীতে ২১ জানুয়ারী রাত আটটা তেত্রিশ মিনিটে আরো একটি স্যাটাসে লেখেন, ‘অভিযুক্ত ড্রাইভারকে বাঁচানোর জন্য বিদেশ থেকে ফোন আশা থেকে শুরু করে আমাদের নিজ দলের অনেকে পরোক্ষভাবে তদবির করছে। আপনারা যত ইচ্ছে বাস মালিকের পক্ষে তদবির করুন, আমি ন্যায় বিচারের পক্ষেই লড়ে যাবো। সত্য ও সুন্দরের জয় অবশ্যই হবে। ’

শুধু স্ট্যাটাস দিয়ে দমে যাননি তিনি, মেয়েটির পরিবার যাতে ন্যায় বিচার বঞ্চিত না হয় সেজন্য শুরু থেকেই খুবই তৎপর ছিলেন। রাউজানের সাড়াজাগানো সংগঠন সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের নেতৃবৃন্দদের পাঠিয়ে রেশমার বাবাকে বুঝিয়ে মামলা করানোর বিষয়ে রাজী করান। যাতে ঘটনাটি ধামাচাপা পড়ে না যায়। ফারাজ করিম চৌধুরীর নির্দেশনামতে সেন্ট্রাল বয়েজ অব রাউজানের সভাপতি সাইদুল, সম্পাদক ইমতিয়াজ জামাল নকিবসহ শীর্ষস্থানীয় নেতৃবৃন্দের কয়েকজন রেমশার বাবা মনির হোসেনকে বুঝিয়ে অবশেষে মনির হোসেন বাদী হয়ে ২১ জানুয়ারী সোমবার রাতে নতুন সড়ক পরিবহন আইনের ১০৫ ধারায় অভিযুক্ত চালকের বিরুদ্ধে মেয়ের মৃত্যুর ঘটনায় মামলা দায়ের করেন। মামলা নং-১১।

ঘটনার প্রেক্ষিতে রাউজান থানা পুলিশ বাস চালকসহ গাড়িটি জব্দ করে থানায় নিয়ে আসেনও চালক জসিম উদ্দিন (৪০) কে আটক করে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। বাস চালক জসিম উদ্দিন রাঙ্গামাটি জেলার নানিয়াছড়ি এলাকার শফিউল্লাহর পুত্র। চট্টগ্রাম মেডকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে ঘটনার পরদিন ২২ জানুয়ারী মঙ্গলবার রেশমার লাশ তার পরিবারের কাছে হস্তান্তরের পর তাকে জানাজা শেষে দাফন করা হয়।

রাউজান থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) কেফায়েত উল্ল্যাহ মামলার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, রেশমার বাবা বাদী হয়ে বাস চালকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

এদিকে বাসের ধাক্কায় কলেজছাত্রী রেশমার মৃত্যুর পর তার ঘটনাটির নিয়ে নানা টালবাহানার পর ফারাজ করিম চৌধুরীর হস্তক্ষেপে থানায় মামলা হওয়ায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফারাজ করিম চৌধুরীকে নিয়ে উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন অগুণিত মানুষ। কাইসার ইকবাল চৌধুরী লিখেছেন, মানবতার জয় হোক। অসহায় মানুষের পাশে থেকে আপনি যেই সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন তার জন্য আমরা নতুন প্রজন্মের পক্ষ থেকে আপনাকে স্যালুট ভাই।

সৈয়দ মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিন লিখেছেন, রাজনীতির নামে নোংরামিগুলো যদি বন্ধ করা যায় তাহলে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি রাজনীতিরও অনেক বেশী উপকার হবে। স্যালুট লিডার। শাহাদাত লিখেছেন, স্যালুট, সর্বদা ন্যায় বিচারের প্রতি। এমন নজির যদি ফটিকছড়িতে হতো তাহলে আমাদের মত মজলুমরা শান্তির নিঃম্বাস ফেলতে পারতাম।

সাফায়েত হোসেন তৌহিদ লিখেছেন, সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ। ধন্যবাদ প্রিয় ফারাজ করিম চৌধুরী ভাই। নিহতের পরিবাকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেওয়ার জন্য। দুরন্ত জয় লিখেছেন, স্যালুট প্রিয়নেতা। নির্ভীক এবং সাহসিকতার পরিচয় দিয়ে এভাবে সাধারণ মানুষের অধিকার আদায়ের প্রচেষ্টা করার জন্য। সাকিব লিখেছেন, এই যে আপনি এগিয়ে এসে উচ্চস্বরে কথাগুলো বলেছেন, এটিই এই যুগের বিবেক নাড়িয়ে দিবে। সকলকে অন্যায়ের বিরুদ্ধে দাঁড়াতে সাহস যোগাবে। মইনুদ্দিন জামাল চিশতি লিখেছেন, প্রতিকুলতার শেষ রাতেও আপনার অনুগত হয়ে অন্যায়ের বিরুদ্ধে অবিচল ধাকবো আমরা সেন্ট্রাল বয়েজ পরিবার।

ডাবুয়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের নতুন পাড়ার মোহাম্মদ মনির হোসেনের মেয়ে কলেজছাত্রী রেশমা আকতারের মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় ফারাজ করিম চৌধুরী ন্যায় বিচারের পক্ষে যেভাবে সোচ্চার থেকেছেন তাতে দেশের সুশাসন প্রতিষ্টার জন্য শুভ লক্ষণ হিসেবে দেখছেন রাউজানের তরুণ প্রজন্ম। ঘটনার সুষ্টু বিচারে সাংসদপুত্রের এমন সাহসী ভূমিকা ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে রাউজানের তরুণ প্রজন্মের মাঝে। অনেকের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এই ঘটনার পর থেকে অন্যায় দেখলে প্রতিরোধ করার জন্য সাধারণ মানুষ সাহস এবং অনুপ্রেরণা পাবে।

এ বিভাগের আরও খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.