সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্সঃ চেমন আরা

0

গোলাম সরওয়ারঃ মুক্তিযুদ্ধের চিন্তা ও চেতনায় জনগন উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রা ধরে রাখা এবং সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে পেছনে ফেলে সুখী সমৃদ্ধিশালী বাংলাদেশ গড়তে মুক্তিযুদ্ধের অবিনাশী চেতনায় দেশ অগ্রগতি ও সমৃদ্ধির পথে অগ্রসর হচ্ছে। বাংলাদেশের জনগন দীর্ঘদিন পর স্বতস্ফুর্তভাবে ভোট দিয়েছে। নির্বাচনে ভোট দিয়ে জনগন আওয়ামী লীগকে জয়যুক্ত করেছে। একথাগুলো বলেছেন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক এমপি চেমন আরা তৈয়ব।

বিগত দিনে সংসদ সদস্য থাকাকালীন চেমনা আরা তৈয়ব দক্ষিণ চট্টগ্রামের দায়িত্বপ্রাপ্ত হয়ে চন্দনাইশ, লোহাগাড়া ও সাতকানিয়াতে প্রচুর উন্নয়ন করেছেন। এখনও সেসব এলাকার মানুষ তাকে স্মরণ করেন। সৎ, সাহসী, ত্যাগী, পরিশ্রমী এই নারী নেত্রি সংরক্ষিত মহিলা আসনে এমপি পদপ্রার্থী। দক্ষিণ চট্টগ্রামের মানুষ মনে করেন উন্নয়নের রূপকার চেমন আরা তৈয়বকে আবারও এমপি মনোনয়ন দেওয়া হোক।

সিটি নিউজ বিডি ডট কমের সাথে একান্ত সাক্ষাৎকারে সাবেক এমপি চেমন আরা তৈয়ব বলেন, ঐক্যবদ্ধ শক্তি সব সময় বিজয় অর্জন করে। এ নির্বাচনে সেটাই প্রমান হযেছে। বর্তমান সরকার যথেষ্ট অভিজ্ঞ। দুর্নীতি, মাদক, জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অবস্থানকে জনগন স্বাগত জানিয়েছে। জননেত্রি শেখ হাসিনা যে মন্ত্রি পরিষদ গঠন করেছেন তারা প্রত্যেকেই ডায়নামিক ও সততার বিচারে পরীক্ষিত। দায়িত্বশীল ও নিষ্ঠাবান বর্তমান সরকার গত দুই মেয়াদে দেশে যথেষ্ঠ উন্নয়ন করেছেন। রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার অবদান বাংলাদেশ আজ প্রযুক্তির দিক দিয়ে বিশ্বের অভিজাত দেশ গুলোর অন্তর্ভূক্ত।

বিশ্বের ১৭৩ জন রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানের মধ্যে সততা, কর্মঠ হওয়ার দিক থেকে শীর্ষ ৩ জনের একজন রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা। এই অর্জন বাংলাদেশকে নিয়ে গেছে উচ্চ মর্যাদায়।

বিশষ্ট নারী নেত্রী চেমন আরা তৈয়ব বলেন, শেখ হাসিনার কঠোর পরিশ্রমে স্বল্পন্নোত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের পথে যাত্রা শুরু করেছে বাংলাদেশ। নারীর ক্ষমতায়নের দিক থেকেও বাংলাদেশ বিশ্বে রোল মডেলের স্থানে পৌঁছে গেছে। নারীর রাজনৈতিক ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ বিশ্বে অষ্টম। আমি মনে করি, উন্নয়নে বাংলাদেশ নতুন ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। এটি একটি জাতির সাফল্যের ইতিহাস। আজ পৃথিবী এ সাফল্য দেখছে।

আপনি জানেন, চট্টগ্রামে কর্ণফুলী টানেল নির্মাণ হচ্ছে, একটি বাড়ী একটি খামার প্রকল্প, পদ্মা সেতু নির্মাণ, পায়রা গভীর সমুদ্র বন্দর, রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র, আশ্রয়ন প্রকল্প, বিধবা ভাতা প্রদান, মুক্তিযোদ্ধা ভাতা প্রদান, প্রতিবন্ধি ভাতা, শ্রমিকদের মজুরী বৃদ্ধি ও রপ্তানী আয় বৃদ্ধি, রেমিট্যান্স প্রবাহ বৃদ্ধি, গরীব শিক্ষার্থীদের জন্য উপ-বৃত্তি প্রদানসহ নানা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে জননেত্রি শেখ হাসিনার স্বপ্ন পূরণে দেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। দেশের অগ্রগতি ও সমৃদ্ধিকে ধরে রাখতে আমাদের ঐক্যবদ্ধ হওয়ার কোন বিকল্প নেই। নারী জাগরনে জননেত্রি শেখ হাসিনার বলিষ্ট উদ্যেগে আজ নারীরা সমাজে মাথা উঁচু করে ঠাঁই করে নিয়েছে। নারী সমাজ জননেত্রী শেখ হাসিনার নিকট কৃতজ্ঞ। নারীর ক্ষমতায়ন আজ দেশে ও বিদেশে সমাদৃত হয়েছে। আমি সরকারের সফলতা কামনা করছি।

এ বিভাগের আরও খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.