ইংল্যান্ডের টার্গেট ২২৪

0

সিটি নিউজ ডেস্ক :  ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়াকে ২২৩ রানে থামালো স্বাগতিক ইংল্যান্ড। এজবাস্টনে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে ৪৯ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে অস্ট্রেলিয়ার সংগ্রহ ২২৩। লর্ডসের ফাইনালে উঠতে স্বাগতিকদের টার্গেট ২২৪ রান।

টস হেরেই অস্ট্রেলিয়াকে চেপে ধরেছে ইংল্যান্ড। ১৪ রানেই অজিদের তিন উইকেট তুলে নিয়েছে ইংলিশরা। ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের প্রথম বলেই ফিঞ্চকে ফিরিয়ে দেন জফরা আর্চার। রিভিউ নিয়েও বাঁচতে পারেননি ফিঞ্চ। সাজঘরে ফিরলেন খালি হাতেই। আর তৃতীয় ওভারে ওয়েকসের বলে স্লিপে বেয়ারস্টোর হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেছেন ওয়ার্নার। ১১ বলে তিনি করেছেন ৯ রান। সপ্তম ওভারে ওয়েকসের বলে বোল্ড হয়েছেন পিটার হ্যান্ডসকম্ব। ১২ বলে হ্যান্ডসকম্ব করেছেন ৪ রান।

তৃতীয় উইকেট জুটিতে স্টিভেন স্মিথ ও অ্যালেক্স ক্যারি ১০৩ রান যোগ করে প্রাথমকি চাপ সামাল দেন। ৪৬ রান করা ক্যারি আদিল রশিদের বলে জেমস ভিন্সের তালুবন্দি হন। একই ওভারে মার্কাস স্টোইনসকে (০) ফেরান এই লেগস্পিনার।

এরপর গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে ফিরিয়ে নিজের দ্বিতীয় উইকেট তুলে নেন জোফরা আর্চার। ২৩ বলে দুটি চার ও একটি ছক্কায় ২২ বরে ইয়ন মরগারের কাছে ক্যাচ দেন ম্যাক্সওয়েল। এরপর আদিল রশিদের তৃতীয় শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন প্যাট কামিন্স (৬)। সতীর্থদের যাওয়া-আসার মধ্যে উইকেটের একপ্রান্ত ধরে খেলতে থাকেন তিন নম্বরে নামা স্মিথ। তাকে সঙ্গ দেন পেসার মিচেল স্টার্ক। এই জুটিতে আসে আরও ৫১ রান।

ইনিংসের ৪৮তম ওভারে রানআউট হওয়ার আগে স্মিথ করেন ৮৫ রান। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের নবম সেঞ্চুরি মিস করা স্মিথের ১১৯ বলে সাজানো ইনিংসে ছিল না কোনো ছক্কার মার, ছিল ছয়টি বাউন্ডারি। স্মিথের বিদায়ের পরের বলেই ফেরেন ৩৬ বলে একটি করে চার ও ছক্কা হাঁকিয়ে ২৯ রান করা স্টার্ক। নাথান লায়ন ৫, জেসন বেহেরনড্রফ ১ রান করেন।

প্রথম বিশ্বকাপ শিরোপা জয়ের আশায় পঞ্চমবারের মতো বিশ্বকাপ আয়োজন করেছে ইংল্যান্ড। আর ২৭ বছর পর বিশ্বকাপের সেমি ফাইনাল খেলার যোগ্যতা অর্জন করেছে ইংলিশরা। গ্রুপ পর্বের দু’দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে অজিদের বিপক্ষে ৬৪ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছিল ইংলিশরা।

বিশ্বকাপে হেড টু হেড মোট ম্যাচ:

৮টি, ইংল্যান্ড জয়ী: ২টি। অস্ট্রেলিয়া জয়ী: ৬টি। মুখোমুখি দুই দল মোট ম্যাচ: ১৪৮টি, ইংল্যান্ড জয়ী: ৬১টি। অস্ট্রেলিয়া জয়ী: ৮২টি। ড্র: ০টি ম্যাচ, পরিত্যক্ত: ৩টি।

ইংল্যান্ড একাদশ:

ইয়ন মরগান (অধিনায়ক), জনি বেয়ারস্টো, জস বাটলার, জোফরা আর্চার, লিয়াম প্লাংকেট, আদিল রশিদ, জো রুট, জ্যাসন রয়, বেন স্টোকস, ক্রিস ওকস এবং মার্ক উড।

অস্ট্রেলিয়া একাদশ:

অ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ, জেসন বেহেরনড্রফ, অ্যালেক্স ক্যারি (উইকেটরক্ষক), প্যাট কামিন্স, নাথান লায়ন, পিটার হ্যান্ডসকম্ব, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মিচেল স্টার্ক এবং মার্কাস স্টয়নিস।

এ বিভাগের আরও খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.