দাবি আদায়ে পাটকল শ্রমিকদের আমরণ অনশন

0

সিটি নিউজ ডেস্ক :  দাবি আদায় লক্ষ্যে একের পর এক আন্দোলন করে যাচ্ছেন পাঠকল শ্রমিকরা। কিন্তু দীর্ঘ আন্দোলনের পরও বকেয়া মজুরি, পিএফের টাকা প্রদান ও বদলি শ্রমিকদের স্থায়ীকরণ, মজুরি কমিশনসহ ১১ দফা ন্যায্য দাবি মানা হচ্ছে না। এজন্য বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর গোলাম দস্তগীর গাজীর পদত্যাগ দাবি করেন শ্রমিকরা।

পূর্বঘোষণা অনুযায়ী বুধবার সকাল ৯টা থেকে খুলনা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, নরসিংদীসহ কয়েকটি জেলা-উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় জড়ো হয়ে আমরণ অনশন শুরু করেন। পরে বিক্ষোভ, ভুখা মিছিল, সমাবেশ করেন সিবিএ এবং নন-সিবিএ নেতা-শ্রমিক ও তাদের পরিবারের সদস্যরা।

চট্টগ্রামে কাজে যোগ না দিয়ে বিক্ষোভ : চট্টগ্রামে আমিন জুটমিলের শ্রমিকরা কাজে যোগ না দিয়ে কয়েক দফায় বিক্ষোভ এবং পাটমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা দাহ, থালা-বাটি হাতে ভুখা মিছিলসহ নানা কর্মসূচি পালন করেন। আমিন জুটমিল সিবিএ সভাপতি আরিফুর রহমান বলেন, জাতীয় মজুরি কমিশন বাস্তবায়নসহ ১১ দফা দাবিতে আমরা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে যাচ্ছি।

এ বিষয়ে বেশ কয়েকবার আমরা বস্ত্র ও পাটমন্ত্রীর কাছে গিয়েছি। কিন্তু পাটশিল্প রক্ষায় তার কোনো উদ্যোগ আমরা দেখতে পাচ্ছি না। তাই আমরা পরিবার-পরিজন নিয়ে লাগাতার অনশনে নেমেছি। এই সিবিএ নেতা বলেন, আমাদের কোনো দাবিই পূরণ হয়নি। গত রমজানেও আমরা আন্দোলন করেছি। সরকারি ও অন্যান্য কর্পোরেশনের কর্মচারীরা পেয়েছেন জাতীয় মজুরি কমিশন ২০১৫ স্কেল। পাঁচ বছর অতিক্রান্ত হচ্ছে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকরা পাননি। আমরা যে ন্যূনতম মজুরি পাই তাও ১২ সপ্তাহ পর্যন্ত বকেয়া। অনেক শ্রমিক অবসরে গেলেও তাদের এককালীন পাওনা পাননি। মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।

এমনকি পাওনা ছাড়াই অনেক শ্রমিক মারা গেছেন, মারা গেছেন তাদের নমিনিও। তিনি আরও বলেন, আমাদের কারখানার কর্মচারীরা গত ১৩ সপ্তাহ ধরে বেতন পাচ্ছেন না। কর্মকর্তারা বেতন পেয়েছেন তিন মাস আগে। এ কারখানায় প্রায় চার হাজার কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন। তারা কী খেয়ে বেঁচে আছেন সে খবর কি কারও আছে? তাই আমরা বাধ্য হয়ে আমাদের পরিবার-পরিজন নিয়ে লাগাতার অনশনে এসেছি।

আমিন জুটমিল সিবিএ সাধারণ সম্পাদক মো. মোস্তফা জানান, আমিন জুটমিল ছাড়াও চট্টগ্রামে আরও ৯টি পাটকল রয়েছে। চট্টগ্রামের সব শ্রমিক নেতাও কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন। তিনি বলেন, কেবল ১১ দফা দাবিই নয়, আমাদের আরও অনেক ক্ষোভ রয়েছে। পাটকল শ্রমিকদের সমস্যা লাঘবে সরকারের কোনো সদিচ্ছা নেই। সরকার বরাবরের মতোই আমাদের ব্যাপারে উদাসীনতা দেখিয়ে আসছে। সত্যি কথা বলতে কী-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরাসরি হস্তক্ষেপ ছাড়া এ সংকট থেকে উত্তরণ সম্ভব নয়।

খুলনার পাটকল শ্রমিকদের আমরণ অনশন : ১১ দফা বাস্তবায়নের দাবিতে আমরণ অনশন করেছেন খুলনার রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকরা। আজ বিকাল ৩টা থেকে এ কর্মসূচি শুরু হয়। রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সিবিএ-নন সিবিএ সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে ক্রিসেন্ট, প্লাটিনাম, স্টার, ইস্টার্ন, খালিশপুর, দৌলতপুর, আলিম, যশোরের জেজেআই, কার্পেটিং মিলের অর্ধলক্ষ শ্রমিক অংশ নেন।

শ্রমিকদের অন্য দাবির মধ্যে রয়েছে- পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশীপ (পিপিপি) বাতিল, অবসরপ্রাপ্ত শ্রমিক, কর্মচারি ও কর্মকর্তাদের পিএফ গ্রাচ্যুইটির টাকা প্রদান, শ্রমিকদের সাপ্তাহিক মজুরি নিয়মিত পরিশোধ, পাট মৌসুমে পাট ক্রয়ের অর্থ বরাদ্দ, মিল আধুনিকীকরণ, জুটগুডস ম্যান্ডেটরি অ্যাক্ট বাস্তবায়ন প্রভৃতি।

রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল সিবিএ-নন সিবিএ সংগ্রাম পরিষদের যুগ্ম আহবায়ক খলিলুর রহমান জানান, পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী শ্রমিকরা স্ব স্ব মিল গেটে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করছে। শ্রমিকদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে। তাই বাধ্য হয়েই এমন সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছে। আমরা দেশের পাট শিল্প বাঁচাতে সরকারের কার্যকরী উদ্যোগ চাই।

নরসিংদীতে আমরণ অনশনে পাটকল শ্রমিকরা : এবার নরসিংদীর ইউএমসি জুটমিলের শ্রমিকরা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী আমরণ অনশন শুরু করেছেন। বাংলাদেশ রাষ্ট্রায়ত্ব পাটকল শ্রমিক সিবিএ-নন সিবিএ সংগ্রাম পরিষদের উদ্যোগে গতকাল দুপুর ১২টা থেকে আমরণ অনশন কর্মসূচি শুরু করা হয়। আগের আন্দোলনের মতো এবারও ইউএমসি জুটমিলের প্রধান ফটকের সামনে অশং নেন হাজারো পাটকল শ্রমিক।

আমরণ অনশন কর্মসূচিতে শ্রমিক নেতারা বলেন, ২০১৫ সালে ঘোষণা দিয়েও মজুরি কমিশন বাস্তবায়ন না হওয়ায়,শ্রমিকরা পরিবার পরিজন নিয়ে অনেকটা মানবেতর জীবন-যাপন করছেন। মজুরি কমিশন বাস্তবায়ন, ১১ সপ্তাহের বকেয়া বেতন পরিশোধ, পিএফের টাকা প্রদান, বদলি শ্রমিকদের স্থায়ীকরণসহ ১১ দফা শ্রমিকদের ন্যায্য দাবি। যা সরকার মানছেন না।

এজন্য বাধ্য হয়ে আমরণ অনশন কর্মসূচি পালন করতে রাস্তায় নেমেছেন শ্রমিকরা। ন্যায্য দাবি আদায়ের জন্য আমরণ অনশন ধর্মঘটে মিলের শ্রমিক স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নিয়েছেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত অনশন কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলেও জানান শ্রমিকরা।

এ বিভাগের আরও খবর

আপনার মতামত লিখুন :

Your email address will not be published.