প্রেস বিজ্ঞপ্তি ও সাংবাদিক সম্মেলন

রিপোর্টারের ডায়রী-৫

0

রিপোর্টারের ডায়রী-৫
জুবায়ের সিদ্দিকীঃ প্রেস বিজ্ঞপ্তি ও প্রেস কনফারেন্স দুটি বিষয়ের মধ্যে মিল রয়েছে আবার পার্থক্যও বিস্তর। প্রেস বিজ্ঞপ্তি লেখা হয় কোন তথ্য জানানোর জন্য বা কোন অনুষ্ঠান প্রচারের উদ্দেশ্যে। প্রেস কনফারেন্স বা সাংবাদিক সম্মেলনের উদ্দেশ্যও তাই। তথ্য অবগত করানো। কিন্তু প্রথমটি পত্রিকায় বা গণমাধ্যমের অফিসে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। রিপোর্টার বা সাব-এডিটররা যা থেকে সংক্ষিপ্তসার পাঠককে বা দর্শককে জানিয়ে দেন। সাংবাদিক সম্মেলনে যে লিখিত বিবৃতি বক্তব্য আকারে পেশ করা হয় ও সাংবাদিক তার প্রয়োজনীয় নোট নিয়ে নেন এবং খবর তৈরী করে দেন। উভয় পদ্ধতিকে ব্যবহার করা হয় প্রচারের কাজে।তথ্য জানানোর কাজ। কোন দ্রব্য বাজারে ছাড়ার জন্য অথবা কোন বক্তব্য সর্বসাধারণকে বা প্রশাসনকে জানানোর জন্যেই এই দুই পদ্ধতির আশ্রয় নেওয়া হয়। সাধারণ বিষয় বা চলমান ঘটনা, সভা, সেমিনার বা আলোচনা সভা, সংস্কৃতি ও ক্রীড়া, সামাজিক সংবাদ সাধারণত প্রেস রিলিজ আকারেই আগে প্যাডে লিখে ছবিসহ কাগজের অফিসে আসতো। এখন যুগ পরিবর্তন হয়েছে। এখন ইন্টারনেটের বদৌলতে মেইলে আসছে। বড় কোন ঘটনা হলে হচ্ছে সংবাদ সম্মেলন।

বিজ্ঞপ্তিতে পাঠানো খবর পত্রিকায় দিতেও পারে আবার নাও দিতে পারে। কিন্তু সাংবাদিক সম্মেলনও এখন কখনো ছাপা হয় আবার কখনো ছাপা হয়না। সাংবাদিক সম্মেলন হয় মুখোমুখি বা সরাসরি। কোন বিষয় জানতে অসুবিধা হলে প্রতিবেদক তা জেনে নেন প্রশ্ন করে। বক্তাও ভাষার মাধ্যমে বা তথ্য প্রমানাদি পেশ করে বুঝিয়ে তার বক্তব্যকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারে। কিন্তু প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ভাষা থাকে, ভাব থাকে অনুপস্থিত। তাই বিজ্ঞপ্তির ক্ষেত্রে কতকগুলি বিষয়ে সাবধান হতে হয়। মনে রাখা উচিত, বিজ্ঞপ্তিটি যারা পড়বেন তারা ভীষণ ব্যস্ত মানুষ ও নানা কাজের ফাঁকে তা পাঠ করবেন। তাই বিজ্ঞপ্তির বক্তব্য হবে যত সংক্ষেপে তা হওয়া সম্ভব। প্রয়োজনের বেশী একটি শব্দও এতে ব্যবহার করা উচিত নয়। আবার তা যেন হয় তথ্য ভিত্তিক। না হলে সাংবাদিদের কাছে তা উৎসাহের কারন হতে পারবে না।

সাংবাদিক সম্মেলনে সাংবাদিক নিজে উপস্থিত থাকেন বলে তিনি বিষয়ের মূল বক্তব্যকে উপরে সাজিয়ে নিজের মনমতো সংবাদ লিখে নেন। কিন্তু বিজ্ঞপ্তি যদি সংবাদ আকারে সেইরকমভাবে গল্প বা কাহিনী পরিসরে সাজানো না থাকে তাহলে সাংবাদিকদের পক্ষে তা পড়ে তৈরী করার সময় হয়ে উঠেনা। ফলে তার উদ্দেশ্যই ব্যর্থ হয়। সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করলে অত্যন্ত দক্ষতার সাথে পুরো ব্যাপারটা তুলে ধরতে হয় এবং দক্ষ হাতে সম্মেলন পরিচালনা করতে হয়। নাহলে তা উপস্থিত সাংবাদিকদের অসন্তোষের কারণ হয়। কয়েকটি বিষয়ে নজর দিতে হয় যেমনঃ প্রথমত- যে বক্তব্য সাজানো হবে তা সংবাদ আকারে লিখে, সঠিক তথ্য দিয়ে সাজিয়ে গুছিয়ে তুলতে হবে। সাংবাদিক ও সংবাদ মাধ্যমের প্রতিনিধিদের কাছে আমন্ত্রণপত্র যেন সময় থাকতে থাকতে পৌঁছায় এবং কি হবে, কি কারণ, তা যেন আমন্ত্রণপত্রে স্পষ্ট উল্লেখিত থাকে। স্থান নির্বাচন করতে হবে এমনভাবে যাতে একজন সাংবাদিক একসাথে আরও দুয়েকটা প্রোগ্রামে উপস্থিত থাকতে পারেন। বক্তব্য সংক্ষিপ্ত ও গোছোনো হতে হবে। বেশী সময় ধরে ফেনিয়ে গল্প বা অবাস্তব কাহিনী বর্ণনা না করা। সাংবাদিক সম্মেলনের বক্তব্য যেন তথ্যনির্ভর ও সঠিক তথ্য সম্মিলিত হয়। আমাদের সমাজে অনেক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ছোটখাট বিষয় নিয়েও সাংবাদিক সম্মেলন করে বসেন।

আবার বাসাবড়ীতে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ার সূত্রধরে স্ত্রী স্বামীর বিরুদ্ধে বা স্বামী স্ত্রীর বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন করারও নজির রয়েছে। একবার নগরীর পাহাড়তলীর সরাইপাড়ার এক গৃহবধূ সাংবাদিক সম্মেলন করে বললেন, তার স্বামী পরকীয়াতে ব্যস্ত। তাকে মারধর করেন। তিনি এই বিষয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করেও প্রতিকার পাচ্ছেন না। স্বামী সংবাদ সম্মেলনের খবর পেয়ে রাতে এক স্থানীয় পত্রিকায় ফোন করে বললেন, সাংবাদিক ভাই, আঁর বউয়ের কথা মিছাকথা। ঘটনা উল্টো হইয়ে’দে, আঁর বউ মাস্টারের ল’গে প্রেম গরে।বাঁধা দেওনে সাংবাদিক সম্মেলন গই’জ্জেদে। এভাবে অনেক অপ্রাসঙ্গিক, সাজানো গল্পের কাহিনী নিয়ে এবং প্রতিপক্ষকে ঘায়েল, অসৎ উদ্দ্যেশ্যে, মিথ্যার বেসাতী দিয়েও মানুষকে বিভ্রান্ত করতে সাংবাদিক সম্মেলন করার নজির এই দেশে রয়েছে। কেউ আবার ঘটনা ঘটিয়ে উল্টো প্রতিপক্ষকে দোষী করতেও সাংবাদিক সম্মেলনের মত নাটক করেন এই সমাজে।

সিটি নিউজ/জস

এ বিভাগের আরও খবর

আপনার মতামত লিখুন :

Your email address will not be published.