যে কোনো সময় ঘোষণা ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ কমিটি

0

সিটিনিউজবিডি : বিভক্ত ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটি যে কোনো সময় ঘোষণা হতে পারে। নতুন কমিটির ঢাকা মহানগর উত্তরে সভাপতি পদে রয়েছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ও ঢাকা ১০ আসনের এমপি একেএম রহমত উল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আছেন মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাদেক খান।

আর বর্তমান নগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এমএ আজিজ ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি হিসেবে রয়েছেন। সাধারণ সম্পাদক হচ্ছেন নগর কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ। আওয়ামী লীগের উচ্চপর্যায়ের একাধিক সূত্র মানবকণ্ঠকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। নতুন নেতা হিসেবে যাদের নাম এসেছে তাদের দুইজনও মানবকণ্ঠের সঙ্গে আলোচনায় বিষয়টি স্বীকার করেছেন। সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার টেবিলে চূড়ান্ত এ কমিটি রয়েছে। যে কোনো সময় নতুন কমিটির ঘোষণা আসতে পারে।

বিভক্তি প্রশ্নে এতদিন কমিটি আটকে থাকলেও শেষ পর্যন্ত ক্ষমতাসীন দল তার গুরুত্বপূর্ণ এ শাখা সংগঠনটিকে ‘?ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ (উত্তর)’ ও ‘?ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ (দক্ষিণ)’ নামে দুই ভাগে বিভক্ত করে কমিটি ঘোষণা করছে। ২০১২ সালের ২৭ ডিসেম্বরে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলেও প্রায় আড়াই বছর ধরে

আটকে আছে নতুন কমিটি। ওই সম্মেলনে নগরের নতুন নেতৃত্ব নির্বাচনের ক্ষমতা দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার হাতে ন্যস্ত করা হলেও এতদিন পর তা আলোর মুখ দেখতে যাচ্ছে। দলীয় গঠনতন্ত্র অনুযায়ী সংগঠনের প্রতিটি পর্যায়ে তিন বছর পর পর সম্মেলন হওয়ার বিধান রয়েছে অথচ নগর আওয়ামী লীগ তার সম্মেলনের পর আড়াই বছর পার করল কমিটি গঠন ছাড়া।

আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর এক সদস্য জানান, মহানগর আওয়ামী লীগের পাশাপাশি নগরীর প্রায় ওয়ার্ড, ইউনিয়ন ও থানার সম্মেলনই ইতিমধ্যে সম্পন্ন হলেও কোথাও কোনো কমিটি ঘোষণা দেয়া হয়নি। এর কারণ নতুন নেতৃত্ব নিজেদের সঙ্গে মানিয়ে এসব কমিটি দেবেন। এ প্রতিবেদক ওই নেতার অফিসে থাকাবস্থায় নগর আওয়ামী লীগের যাত্রাবাড়ী থানার এক মধ্যম সারির নেতা তার সঙ্গে দেখা করতে এলে তাকে এমএ আজিজের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলার পরামর্শ দেন।

সূত্র জানায়, ঢাকা মহানগর কমিটি বর্তমানের মতো একটি হবে নাকি উত্তর ও দক্ষিণ দুই ভাগে ভাগ করা হবে এটা নিয়েই মূলত কমিটি আটকে ছিল। দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা নিজেই এ বিষয়ে দ্বিধাদ্বন্দ্বে ছিলেন বলে প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ একটি সূত্র জানিয়েছে। এছাড়া নগর কমিটির একজন প্রভাবশালী নেতাও চেয়েছিলেন নগর যেন বিভক্ত না হয়। কিন্তু সিটি নির্বাচনে দলের প্রার্থীদের পক্ষে জোরালো ভূমিকা ছিল না বলে তার বিরুদ্ধে খোদ দলের মধ্যেই অভিযোগ ওঠে। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীও আমলে নিয়েছেন। তাই যারা দুই সিটি নির্বাচনে দলের নেতাদের পারফর্মেন্স বিবেচনা করে দুই ঢাকার নেতা নির্বাচিত করেছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। এমন সিদ্ধান্তের মধ্য দিয়ে ঢাকা দক্ষিণের আলোচিত প্রার্থী কামরুল ইসলাম ও হাজী মো. সেলিম এবং উত্তরে কামাল আহমেদ মজুমদার নগরের নতুন নেতৃত্বের দৌড় থেকে ছিটকে পড়লেন।

এর আগে ২০০৩ সালের ১৮ জুন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই সম্মেলনে ঢাকার সাবেক মেয়র প্রয়াত মোহাম্মদ হানিফকে সভাপতি ও মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়। মোহাম্মদ হানিফের মৃত্যুর পর এমএ আজিজ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন সূএ-মানবকন্ঠ

এ বিভাগের আরও খবর

আপনার মতামত লিখুন :

Your email address will not be published.