মাদক,সন্ত্রাস,জঙ্গীবাদ ও দুর্নীতিমুক্ত দেশ গঠনে সরকার কাজ করছেঃ মেয়র

0

সিটি নিউজঃ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আলহাজ্ব আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও দুর্নীতিমুক্ত দেশ গঠনে বর্তমান সরকার রাষ্ট্রের অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি মানবিক সমাজ গঠনে কাজ করছে।

তিনি বলেন, মাদকাসক্ত ব্যক্তি, পরিবার, সমাজ ও রাষ্ট্রকে ক্ষতিগ্রস্ত করছে। মাদক সহজলভ্য হওয়ায় এর ব্যবহার আশংকাজনক হারে বেড়ে চলেছে। ফলে পরিসংখ্যান মতে দেশে প্রায় ৭০ লক্ষ মাদক সেবী রয়েছে । তন্মধ্যে বেশির ভাগই কিশোর-কিশোরী ও যুবক-যুবতী। এই মাদক ব্যবহারকে নিয়ন্ত্রন করতে হলে পরিবারকে উদ্যোগ গ্রহন এবং সাথে সাথে মাদককে দুস্প্রাপ্য করতে হবে।

আজ বুধবার (১০ এপ্রিল) সকালে চাক্তাই রাজাখালী আইডিয়াল স্কুল প্রাঙ্গনে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন বক্সিরহাট ওয়ার্ড আয়োজনে মাদক, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও দুর্নীতি বিরোধী সমাবেশ ও এলাকার জনগণের সাথে সার্বিক বিষয়ে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিটি মেয়র এসব কথা বলেন। সভায় সভাপতিত্ব করেন স্থানীয় কাউন্সিলর হাজী নুরুল হক।

এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চসিক আইন শৃংখলা বিষয়ক স্থায়ী কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর এইচ এম সোহেল, সদস্য সচিব নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আফিয়া আকতার, স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট (যুগ্ম জেলা জজ) জাহানারা ফেরদৌস, বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা প্রণব চৌধুরী।

স্থানীয় গন্যমান্যদের পক্ষে বক্তব্য রাখেন চাক্তাই শিল্প ও ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি এস এম হারুন উর রশিদ, চট্টগ্রাম রাইস মিল মালিক সমিতির শান্ত দাশ গুপ্ত, চট্টগ্রাম ডাল মিল মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক মহিম উদ্দিন মহিম, চাক্তাই আড়তদার ব্যবসায়ী সমিতির আহসান খালেদ পারভেজ, চট ব্যবসায়ী সমিতির আলী আব্বাস তালুকদার, চট্টগ্রাম জেলা সড়ক পরিবহন লীগের সভাপতি উজ্জ্বল বিশ্বাস, জাতীয় শ্রমিক লীগ বক্সিরহাট ওয়ার্ড সভাপতি ওমর মিয়া সর্দ্দার, বক্সিরহাট পুলিশিং কমিটির মহিলা সম্পাদিকা রাজশ্রী মজুমদার, বক্সিরহাট ওয়ার্ড মহিলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি কানিজ ফাতেমা প্রমুখ।

বক্সিরহাট ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ নেতা লিটন রায়ের পরিচালনায় সমাবেশ ও মতবিনিময় সভায় উপস্থিত ছিলেন বক্সিরহাট ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল আমিন শান্তি, সাধারণ সম্পাদক ফয়জুল্লাহ বাহাদুর, লুৎফর রহমান ফারুক, আলী আকবর চৌধুরীসহ সামাজিক ও ব্যবসায়িক নেতৃবৃন্দ।

তিনি আরো বলেন মাদক সেবক ও মাদক বিক্রেতা উভয়ই সমাজের অংশ। তাদেরকে চিহ্নিত করে কাউন্সিলিং এর মাধ্যমে নিয়ন্ত্রন করা গেলে সমাজ, দেশ ও জাতি সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে। অসৎসঙ্গ ও হতাশা থেকে তরুনরা মাদক সেবনে উৎসাহিত হয়। এ থেকে পরিত্রানের জন্য পাড়া মহল্লা, ওয়ার্ড, থানা ও নগর পর্যায়ে জনসচেতনতা সৃষ্টি করা অপরিহার্য।

চট্টগ্রাম নগরীতে এই কাজটি করে যাচ্ছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। মাদকাসক্ত,সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদ ও দুর্নীতি একইসূত্রে গাথা। এর ভয়াবহ থেকে আমাদের নতুন প্রজম্মকে রক্ষা করতে হবে। এই প্রসংগে মেয়র বলেন চসিকের মুলকাজ হচ্ছে নগর পরিচ্ছন্নতা,আলোকায়ন এবং অবকাঠামোগত উন্নয়ন। নগরবাসীর পরিষেবা নিশ্চিত করা।

সামাজিক দায়বদ্ধতা কারণে এই বিধিবিধানের বাইরে গিয়েও চসিক অনেক কাজ করে থাকে। চট্টগ্রাম নগরকে মাদক,সন্ত্রাস,জঙ্গিবাদও দুনীতিমুক্ত করতে এই কর্মসুচির কথা উল্লেখ করে মেয়র বলেন, জনমত, জনকল্যাণ ও জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে চসিক ২০১৭ সাল থেকে এই কর্মসূচি পালন করে আসছে। এর মুল উদ্দেশ্য হচ্ছে এসব অপরাধ সম্পর্কে নগরবাসীকে উদ্ভুদ্ধ করা। নগরবাসী তাঁর উপর অর্পিত দায়িত্ব পালনে এগিয়ে আসলে এই শহর হবে বসযোগ্য ও বিশ্বমানে শহর।

এ বিভাগের আরও খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.