মেয়রের সহযোগিতায় পাঠানটুলী ওয়ার্ডে অভাবনীয় উন্নয়ন হয়েছেঃ আব্দুল কাদের

0

জুবায়ের সিদ্দিকীঃ চট্টগ্রাম মহানগরীর প্রাণকেন্দ্র আগ্রাবাদ বানিজ্যিক এলাকা নিয়ে গঠিত ২৮নং পাঠানটুলী ওয়ার্ডে বিগত ৪ বছরে যে ব্যাপক উন্নয়ণ কর্মকান্ডের মাধ্যমে অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। ৪ বছরে ৫০ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন হয়েছে ওয়ার্ডে। উন্নয়ণের এই রূপকার কাউন্সিলর মো: আব্দুল কাদের। ওয়ার্ডের উন্নয়ন ছাড়াও এলাকাকে সন্ত্রাস ও মাদক মুক্ত করে সর্বস্তরের মানুষের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছেন তিনি।

শ্রমজীবি ও খেটে খাওয়া মানুষের অত্যন্ত কাছের মানুষ যুবলীগ নেতা আব্দুল কাদের। স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে রাজপথের অকুতোভয় সাবেক ছাত্রনেতা আব্দুল কাদের বিএনপি-জামায়াতের দু:শাসনের সময় রাজনৈতিক মিথ্যা মামলায় একটানা ৯ বছর কারাগারে দু:সহ জীবন অতিবাহিত করেছেন। শ্বৈরাচারী শাসকের জেল, জুলুম ও অত্যাচার সহ্য করেও বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অবিচল ছিলেন তিনি। আওয়ামী লীগের রাজনীতির পরীক্ষিত নেতা আব্দুল কাদের মানুষের বিশ্বাস ও ভালবাসায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হন।

রাজনীতি, সমাজসেবা ছাড়াও জড়িত আছেন বিভিন্ন ক্রীড়া ও সংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কন্ঠস্বর আব্দুল কাদের কাউন্সিলর নির্বাচিত হবার পর অভাবনীয় উন্নয়ন কর্মকান্ডের মাধ্যমে সকল শ্রেনী পেশার মানুষের কাছের মানুষে পরিণত হয়েছেন। তার আমলের উন্নয়ন কর্মকান্ড অতীতের সব রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। তাঁর সুচিন্তিত সিদ্ধান্ত, কঠোর পরিশ্রম ও মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিনের আন্তরিক সহযোগিতায় ২৮ নম্বর ওয়ার্ডের চিরায়ত জলাবদ্ধতা অনেকটাই কমে এসেছে।

আগ্রাবাদ বানিজ্যিক এলাকা থেকে শুরু করে ওয়ার্ডের বিভিন্ন সংযোগ সড়কের উন্নয়ন ও সম্প্রসারন করা হয়েছে। জলাবদ্ধতা নিরসনে বড় বড় নালা নর্দমা ও খাল সংস্কারসহ রাস্তাঘাটের উচ্চতা বৃদ্ধি করা হয়েছে। যার সুফল পাচ্ছেন এলাকাবাসী। আগে সাধারণ বৃষ্টিপাতে যেখানে হাঁটু পানি থাকত, সেখানে এখন পানি দেখা যায় না। আগ্রাবাদ বানিজ্যিক এলাকাসহ মোগলটুলি এলাকা জোয়ারের পানিতে প্লাবিত হত। সড়কের উচ্চতা বৃদ্ধি ও নালাগুলো বড় এবং গভীর করায় দ্রুত পানি নিস্কাশন হচ্ছে। যে কারনে ধর্ম ও বর্ন নির্বিশেষে এলাকার সকল শ্রেনী ও পেশার মানুষ কাউন্সিলরের উন্নয়ন কর্মকান্ডে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন।

একজন রাজনীতিবিদ, সমাজ সেবক ও এলাকার অভিভাবক হিসেবে মানুষের বিশ্বাস ও অস্থার প্রতীক হয়ে উঠেছেন আব্দুল কাদের। কাউন্সিলর আব্দুল কাদেরের হাতে ৪ বছরের সংক্ষিপ্ত উন্নয়ন চিত্রের মধ্যে (২০১৫-১৬ সালের কার্য্যাদেশ মতে) আর.বি কোট রোড, আগ্রাবাদ শেখ মুজিব রোড় (আংশিক), আগ্রাবাদ ডেভার দক্ষিণ পাড় বাইলেইন, মতিয়ারপুল বাইলেইন উন্নয়ন, ডিটি রোড়ের দক্ষিণ পার্শ্বে ড্রেইন নির্মাণ ও রাস্তা উন্নয়ন, ২৮ নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন নষ্ট সড়ক শ্রমিক নিয়োগের মাধ্যমে বিভাগীয় মালামাল দিয়ে মেরামত, শেখ মুজিব রোড়ের চৌমুহনী থেকে বারিক বিল্ডিং মোড়, শেখ মুজিব রোড়ের কালভার্টের মাটি উত্তোলন (বাদামতলী মোড় থেকে বারিক বিল্ডিং), নাছির খালের ড্রেনের মাটি উত্তোলন, কমার্স কলেজের চারপাশে ড্রেইন এবং হোস্টেলের সামনের ড্রেইনের মাটি উত্তোলন, আগ্রাবাদ ঢেভার পুর্ব এবং দক্ষিণ পাড়ের ড্রেইন হতে ডিটি রোড়ের সেতু বন্ধন ক্লাব পর্যন্ত ড্রেইনের মাটি উত্তোলন, আগ্রাবাদ বানিজ্যিক এলাকার ড্রেইনের মাটি উত্তোলন ও বাংলাবাজার হতে আর.বি পর্যন্ত ড্রেইনের মাটি উত্তোলন করা হয়েছে।

(২০১৬-১৭ সালের কার্য্যাদেশ মতে) চট্টশ্বরাই বাইলেইন রাস্তার বাকি অংশ সহ নর্দমার কাজ, মতিয়ারপুল নুর বক্স লেইনের উন্নয়ন, মোগলটুলি প্রফেসর লেইন, মোগলটুলি আবু বক্কর ছিদ্দিক লেইন, মোগলটুলি বাই লেইনের উন্নয়ন (নর্দমা সহ), মহিলা কাউন্সিলর ওয়ার্ড (সংরক্ষিত-১১) কার্যালয় উন্নয়ন ও সীমানা প্রাচীর, ড্রেইন সহ ডিটি রোড় বাইলেইনের উন্নয়ন ও বড়ুয়া পাড়া রোড়ের উন্নয়ন করা হয়। (২০১৭-১৮ সালের কার্য্যাদেশ মতে) কাপুড়িয়া পাড়া উন্নয়ন (নালা সহ), পাঠানটুলি সিটি কর্পোরেশন বালক ও বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সীমানা দেওয়াল নির্মান, আগ্রাবাদ বানিজ্যিক এলাকার নালার মাটি উত্তোলন, পাঠানটুলি রোড় হতে চট্টশ্বরা বাই লেইন হতে আগ্রাবাদ নালাল মাটি উত্তোলন, আগ্রাবাদ ঢেবার পাড় নালার মাটি অপসারন, বাপুড়িয়া পাড়া রোড়ের উন্নয়ন, দাতব্য চিকিৎসালয় মেরামত, আগ্রাবাদ শেখ মুজিব রোড়ের পুটপাতের উন্নয়ন, সিটি কর্পো: বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক টয়লেট ও ছাত্রী টয়লেট পুন: নির্মান করা হয়।

(২০১৮-১৯ সালের কার্য্যাদেশ মতে) ২৮ নং পাঠানটুলী ওয়ার্ডস্থ শেখ মুজিব রোড়, ডি.টি রোড় ও ষ্ট্যান্ড রোড় মেরামত করা হয়। এ ছাড়া চলমান প্রকল্পের মধ্যে রয়েছে ২৮ নং ওয়ার্ডস্থ বাংলাবাজার ইছানগর ঘাট মেরামতও কালু সওদাগর বাড়ির সামনের কালভার্ট নির্মান কাজ। এ ছাড়া উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে আতাউল হক সর্দার লেইন ও আবেদীয়া স্কুল গর্লির উন্নয়ন, কবির তোরন গর্লির উন্নয়ন, নজির আহমদ সও: লেইন ও কাঁটা বড়গাছ রোড়ে মতি মঞ্জিল লেইন উন্নয়ন।

এ ছাড়াও দরপত্র আহবানের অপেক্ষায় রয়েছে ছালেহ আহাম্মদ লেইন এর উন্নয়ন ও ষ্ট্যান্ড রোড় এর উন্নয়ন ড্রেইন উন্নয়ন। (২০১৫-১৬ এডিপি ভুক্ত প্রকল্প) ঢাকা ট্রাঙ্ক রোড়ের উন্নয়ন (আংশিক) লট-৩, ষ্ট্যান্ড রোড় , কমার্স কলেজ, আগ্রাবাদ বানিজ্যিক এলাকা ও ঢেবার পাড়ের উন্নয়ন (লট-৫), আগ্রবাদ বানিজ্যিক এলাকা সড়কের উন্নয়ন (লট-১), (২০১৬-১৭ এডিপি ভুক্ত প্রকল্প) শেখ আলমগীর রোড, যাদুঘর এরিয়া রোড় আগ্রাবাদ কমার্স কলেজ (লট-১ ও লট-২), (২০১৭-১৮ এডিপি ভুক্ত প্রকল্প) আগ্রাবাদ ঢেবার সংলগ্ন ড্রেইন, শেখ আলমগীর রোড়, যাদুঘর এরিয়া রোড় আগ্রাবাদ কমার্স কলেজ রোড় উন্নয়ন (লট-৩), ষ্ট্যান্ড রোড়ের উনয়ন ড্রেন সহ, মোগলটুলী হতে বার কোয়ার্টার রাস্তার উন্নয়ন ড্রেইন সহ, পানবাজার মীর আহম্মদ কন্ট্রাক্টর লেইনের উন্নয়ন, ওয়ার্ড অফিস প্রফেসর লেইনের উন্নয়ন ড্রেন সহ ও কাউন্সিলর গলী। (২০১৮-১৯ এডিপি ভুক্ত প্রকল্প) আগ্রাবাদ বানিজ্যিক এলাকা রোড়ের উন্নয়ন, ডি.টি রোড়ের উন্নয়ন (শুভপুর বাসষ্ট্যান্ড থেকে রশীদ বিল্ডিং ছাড়াও পাঠানটুলী বয়েজ হাইস্কুল ও সাইক্লোন সেল্টার নির্মান (জাইকা প্রকল্প) চলমান রয়েছে।

২০১৫ সালের ৩০ জুলাই কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব গ্রহনের মো: আব্দুল কাদের তার ওয়ার্ডে ৪ বছরে ৫০ কোটি টাকার উন্নয়ন কার্যক্রম শেষ করেছেন। এ ছাড়া ১৮০ জনকে বয়স্ক ভাতা ও ১৭০ জনকে প্রতিবন্ধি ভাতা প্রদান করা হয়েছে। নগরীর আগ্রাবাদ বানিজ্যিক এলাকা সংলগ্ন ২৮ নং ওয়ার্ডটি অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ন। এই ওয়ার্ডে বেশিরভাগ চাকুরীজীবি মানুষের বসবাস। সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি সহ সামাজিক অপরাধ ও মাদকের আগ্রাসন মুক্ত নগরী গড়ে তুলতে অগ্রনী ভুমিকা রেখে আসছেন কাউন্সিলর আব্দুল কাদের। যার ফলশ্রুতিতে এই ওয়ার্ডে সামাজিক অপরাধ প্রবনতা অনেকাংশে কমে এসেছে।

এ ছাড়া ধর্মীয় মসজিদ, মাদ্রাসা ও মন্দিরে কাউন্সিলরের সহযোগিতা ও সমাজের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের নিয়ে নিয়মিত মতবিনিময় সভা, রাষ্ট্রীয় কর্মসুচী, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ততার কারনে একটি আলোকিত ও মড়েল ওয়ার্ডে পরিনত হয়েছে। কাউন্সিলর আব্দুল কাদের উন্নয়ন কর্মকান্ডে অভাবনীয় সফলতার জন্য চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দিনের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। তিনি বলেন,’ মানুষের ভালবাসা ও বিশ্বাসকে পুঁজি করে পথ চলছি, ওয়ার্ডের সর্বস্থরের মানুষের সমর্থন আমার প্রতি রয়েছে।

প্রতিটি এলাকায় মানুষের সহযোগিতা পাচ্ছি। যা অব্যাহত থাকলে আগামীতে ২৮ নম্বর ওয়ার্ড হবে চট্টগ্রামের মধ্যে একটি আলোকিত ওয়ার্ড। ধর্ম-বর্ন নির্বিশেষে সামাজিক সম্পৃতি রক্ষা করে প্রতিটি শ্রেনী পেশার মানুষের মধ্যে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর মহান দেশপ্রেমের আদর্শ ও জননেত্রী শেখ হাসিনার ক্ষুধা ও দারিদ্রতামুক্ত দেশ গড়ার মন্ত্র পৌছে দেয়াই ছিল আমার অঙ্গিকার। আমি সফল এবং মানুষের ভালবাসায় মুগ্ধ। সর্বস্তরের মানুষের দোয়া ও আশির্বাদ কামনা করি।

এ বিভাগের আরও খবর

Leave A Reply

Your email address will not be published.